সুস্বাগতম কার্নোওয়াইট

প্রিয়জনদের শেয়ার করুন
466 বার লেখাটি পঠিত হয়েছে ~~~

 সম্প্রতি ২০২০ সালে একটি গাঢ় সবুজ রঙের খনিজ আবিষ্কার হয় যুক্তরাজ্যের কর্নওয়াল খনিতেএই খনিজটির নাম হলো কার্নোওয়াইটI কর্নিশ ভাষায় কর্নওয়ালকে কার্নো বলা হয়। সেইখান থেকে এই খনিজের নাম কার্নোওয়াইট। যদিও আজ থেকে প্রায়  ২০০ বছর আগে কর্নওয়াল খনিতে শুরু হয়েছিল খননের কাজ। সাধারণত টিন এবং তামার পাশাপাশি কয়েকটি অন্যান্য ধাতব যেমন আর্সেনিক, রৌপ্য এবং দস্তা কর্নওয়ালে খনন করা হয়। 

অতি সম্প্রতি ন্যাচারাল হিস্টোরি মিউজিয়ামেগবেষণারত একটি দল কর্নওয়াল খনির অন্তর্গত উইল গরল্যান্ড খনিতে আবিষ্কার করেন এই খনিজটিকেএই দলের নেতৃত্বে ছিলেন খনিজবিদ মাইক রামসেতিনি বলেন যে, বিগত কয়েক বছর ধরেই এই খনিজটিকে খনন করে পাওয়া যাচ্ছিল। কিন্তু তারা এই খনিজটিকে লারোকোনাইট নামক অন্য একটি খনিজের সঙ্গে গুলিয়ে ফেলেছিলেন। পরবর্তী কালে পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, এই নতুন খনিজটির  রাসায়নিক গঠন লারকোনাইটের থেকে আলাদারামসের বক্তব্য অনুযায়ী, কোনভাবে যদি একটি খনিজের রাসায়নিক বিবরণ জানতে পারা যায় বা এর ত্রিমাত্রিক স্ফটিকাকৃতিতে বিভিন্ন অনুগুলির অবস্থান জানা যায়, তবেই আমাদের পক্ষে একটি খনিজকে নতুন আবিষ্কার হিসেবে মান্যতা দেওয়া সম্ভব। তাহলে জেনে নেওয়া যাক, কি এমন বিশেষত্ব খুঁজে পাওয়া গেল এই খনিজটিতে যে বিশেষজ্ঞরা একে নতুন খনিজ হিসেবে চিহ্নিত করতে সক্ষম হলেন?

এই কার্নোওয়াইট খনিজটি একটি জটিল আর্সেনেট খনিজ।  আর্সেনেট খনিজ হলো সেই সব খনিজ যেগুলিতে (AsO₄)³⁻ আয়নটি পাওয়া যায়। কার্নোওয়াইট খনিজটির গঠনে আর্সেনিক, তামা, লোহা, হাইড্রোজেন এবং অক্সিজেন-এর অস্তিত্ব বিদ্যমান।  লারকোনাইটের রাসায়নিক গঠন হলো Cu2Al[(OH)|AsO]·4(H2O) এবং এর রং হলো নীল, এবং কার্নোওয়াইটের রাসায়নিক গঠন হলো Cu2Fe(AsO)(OH) · 4H2O। রাসায়নিক গঠন পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে যে, এই নতুন আবিষ্কৃত খনিজটিতে অ্যালুমিনিয়ামের পরিবর্তে আছে লোহা। অথচ যে লারকোনাইটের সঙ্গে এই খনিজটিকে গুলিয়ে ফেলা হয়েছিল এতো বছর ধরে, তার অধিকাংশই অ্যালুমিনিয়াম দিয়ে তৈরিএই খনিজে অ্যালুমিনিয়ামের জায়গায় লোহা থাকার কারণে এর রঙ গাঢ় সবুজআমরা এই নতুন খনিজের উপকারিতা এবং অপকারিতা নিয়ে এখনো অবগত নই।  

এবার তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই খনিজটির উৎস সম্মন্ধে। এটি জানতে হলে আমাদেরকে প্রথমে  জানতে হবে ভ্রাম্যমান বস্তু সম্পর্কেযখন প্রকৃতির ক্ষয়কারী  শক্তিগুলি যেমন জল, বায়ু ইত্যাদি একটি পাথরকে আঘাত করে, তখন যে সমস্ত আয়নগুলি সেই শিলাখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বা যাদের বিচ্ছিন্ন হবার সম্ভাবনা থাকে,  তাদেরকে ভ্রাম্যমান আয়ন বলা হয়।  বৈজ্ঞানিকরা ধারণা করছেন যে প্রবহমান জলের দ্বারা পাথরের ক্ষয়ের পর যখন এই ভ্রাম্যমান বস্তুগুলি আবার নতুন স্ফটিকরূপ ধারণ করে, তখনই সম্ভবত এই কার্নোওয়াইট খনিজটির সৃষ্টি হয়।    

এই খনিজটির বিবরণ ইন্টারন্যাশনাল মিনেরালজিক্যাল এসোসিয়েশন ২০২০ সালে অনুমোদন করে এবং ২০২১ সালের মিনেরালজিক্যাল ম্যাগাজিনে এই খনিজের সমস্ত বিবরণ প্রকাশ করবার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।    

 

তথ্যসূত্র

http://www.sci-news.com/geology/kernowite-09187.html

Rumsey, M. S.; Welch, M. D.; Spratt, J.; Kleppe, A.; Števko, M. (15 December 2020). “Newsletter 58”. Mineralogical Magazine. Cambridge University Press. doi:10.1180/mgm.2020.93.

“Kernowite: New mineral found on rock mined in Cornwall”. BBC News. 2020-12-23. Retrieved 2020-12-23.

Beautiful new emerald-green mineral described from Cornwall”. Natural History Museum. Retrieved 2020-12-23

“Kernowite”. mindat.org. Retrieved 2020-12-24

=========

~ কলমে এলেবেলে বিশাল ~

এলেবেলে দলবল 

► লেখা ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক করুন, কমেন্ট করুন, আর সকলের সাথে শেয়ার করে সকলকে পড়ার সুযোগ করে দিন। 

► এলেবেলেকে ফলো করুন। 


লেখাটি পঠিত হয়েছে web counter বার

 

 

 

 

Leave a Reply

free hit counter
error

লেখা ভালো লেগে থাকলে দয়া করে শেয়ার করবেন।