মরণ ফাঁদ

প্রিয়জনদের শেয়ার করুন
161 বার লেখাটি পঠিত হয়েছে ~~~

 

 

 

একদিন এক পুরুষ মাকড়সা প্রেমে হাবুডুবু খেয়ে এক মহিলা মাকড়সার জালে এসে পড়ল, আর মহিলা মাকড়সাটিও সুগন্ধি ফেরোমন দিয়ে প্রলোভন দেখিয়ে তাকে তার জালে ফাঁসিয়ে ফেলল, ফলে পুরুষ মাকড়সাটি আরো কাছাকাছি এল, আর ঠিক তার পরের মুহূর্তেই মহিলা মাকড়সাটি পুরুষটির মাথা কড়মড়িয়ে চিবিয়ে খেয়ে ফেলল!! 

পুরুষ মাকড়সাটি আরো কাছাকাছি এল, আর ঠিক তার পরের মুহূর্তেই মহিলা মাকড়সাটি পুরুষটির মাথা কড়মড়িয়ে চিবিয়ে খেয়ে ফেলল

 

নিশ্চই ভাবছ দিনে দুপুরে এ কোন গাঁজাখুরি গল্প শুরু করলো রে বাবা!! আসলে কিন্তু অনেক মাকড়সার প্রজাতিতেই  স্বজাতি ভক্ষণের এই ঘটনা হামেশাই দেখা যায়, একে ক্যানিবালিসম বলে। আর আজকে এই ক্যানিবালিসম-এরই গল্প বলব তোমাদের।

শুধু মাকড়সা নয়, অন্যান্য অনেক প্রাণীদের মধ্যেই রয়েছে এই স্বজাতি ভক্ষণের প্রবণতা। কিন্তু মাকড়সা নিয়েই লিখছি, কারণ মাকড়সার বহুসংখ্যক প্রজাতির মধ্যেই দেখা মেলে এই ধরনের ঘটনার, যেখানে মিলনের আগে বা পরে বা মিলনরত অবস্থায় স্ত্রী মাকড়সা তার সঙ্গী পুরুষ মাকড়সাটিকে শুধু হত্যাই করে না, তাকে খেয়েও ফেলে, সেই কারণে একটি প্রজাতির মাকড়সার নামই রয়েছে ‘Widow Spider’!

এহেন আচরণের কারণ অনুসন্ধান করতে বহু বিজ্ঞানীর কালঘাম ছুটেছে, ভিন্ন ভিন্ন বিজ্ঞানীর ভিন্ন ভিন্ন মতও রয়েছে এই বিষয়ে। এক নয় বরং একাধিক কারণকে তাঁরা দায়ী করেছেন এর পিছনে! এবার বরং সেগুলি জেনে নেওয়া যাক।

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, যে সমস্ত মাকড়সা আকারে ছোট, তারাই অধিকাংশ ক্ষেত্রে স্ত্রী মাকড়সার খাদ্যে পরিণত হয়েছে, অনেক মাকড়সার প্রজাতির ক্ষেত্রে পুরুষের শারীরিক আকার স্ত্রী মাকড়সার একশ ভাগের একভাগ হয়ে থাকে, তাদের ক্ষেত্রেই এই ধরণের আচরণ দেখতে পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। কারণ আকারে ছোট হলে তাকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করা তুলনামূলক ভাবে সহজ, কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে স্বপ্রজাতির পুরুষকে হঠাৎ করে খাদ্য বানানোর এমন অত্যাশ্চর্য দরকার পড়লই বা কেন? যেহেতু এই ধরনের আচরণ বিবর্তনের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েছে, তাই এর পিছনে অভিব্যক্তিমূলক কারণ থাকা অবশ্যম্ভাবী! বিজ্ঞানীরা এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে খুঁজতে কিছু তত্ত্ব প্রস্তাবিত করেছেন। বিভিন্ন গবেষণাপত্র থেকে এই বিষয়ে বেশ কিছু তথ্য জানা যায়। 

একটি তত্ত্ব অনুযায়ী স্বজাতীয় পুরুষ মাকড়সা শিকার হিসাবে খুব সহজ পছন্দ। আকারে ছোট হওয়ার কারণে গ্রহণ করাও সুবিধা এবং শিকার ধরার শক্তি ব্যয় থেকেও মুক্তি। তার উপর পুরুষ মাকড়সা উৎকৃষ্ট প্রোটিন এর উৎস। এমনটাও মনে করা হয় যখন পুরুষ মাকড়সার সংখ্যা বেশি হয় তুলনামূলকভাবে, সাথে শিকারের ঘাটতি থাকে, তখন স্ত্রী মাকড়সা ক্ষুধার্ত বোধ করলে পুরুষ মাকড়সাদের খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করে, এই আচরণ সরাসরি পুরুষ মাকড়সার আকার, প্রাচুর্য এবং খাদ্যের ঘাটতির সাথে সমানুপাতিক।

এই ধরনের পুরুষ মাকড়সারাও কিন্তু নিজেদের ভবিতব্য জেনেই এই ফাঁদে পা দেয়, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মারা যাবার পূর্বে পুরুষ মাকড়সা তার শুক্রাণু স্ত্রী মাকড়সার দেহে প্রদান করতে সক্ষম হয়, এতে করে পুরুষ মাকড়সাটি তার নিজ বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন জিনকে পরবর্তী প্রজন্মে পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়। নিজের সন্তানের জন্য এটি একটি চরমতম পরিত্যাগ বলে বিজ্ঞানীরা মনে করে থাকেন। প্রাণী জগতে সন্তানের জন্য নিজের জীবন বিপন্ন করার প্রবণতা কিন্তু একাধিক প্রজাতির মধ্যে দেখা যায়।

নিজের সন্তানের জন্য এটি একটি চরমতম পরিত্যাগ বলে বিজ্ঞানীরা মনে করে থাকেন।

আরও একটি তত্ত্ব উঠে আসে, সেটি হল স্ত্রী মাকড়সাটির পছন্দ। প্রাণীকূলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই স্ত্রী-রাই তাদের সঠিক পুরুষ সঙ্গী বেছে নেয়। এখানেও কাজ করে নিজের সন্তান প্রীতি, কারণ সব মা-রাই চায় তাদের সন্তানের মধ্যে সর্বোৎকৃষ্ট গুণের সমাহার ঘটুক, আর তাই সর্বোত্তম গুণ সমৃদ্ধ পুরুষটিকেই সে বেছে নেয়, এবং যোগ্য পুরুষটির সাথে মিলনের পর পরবর্তী প্রজন্ম সুনিশ্চিত হয়ে গেলে সেই চরিত্রগুলি যাতে অন্যের সন্তানের মধ্যে না প্রবাহিত হতে পারে তার জন্যই পুরুষটিকে হত্যা করে ভক্ষণ করে নেয়।

এর আরও একটি বড় কারণ হল মাকড়সার জগতে পুরুষের প্রাচুর্য অনেক বেশি স্ত্রীর তুলনায়, আর সব প্রাণীরই একটি প্রাথমিক প্রবৃত্তি থাকে যত বেশি সংখ্যক সন্তানের মধ্যে নিজের চরিত্রগুলি সঞ্চারণ করা যায়, তাই একটি পুরুষ নিজের পিতৃত্বের বিনিময়ে প্রাণ ত্যাগ করতেও পিছপা হয়না। অনেক সময় স্ত্রী মাকড়সার খোঁজ করতে করতেই মারা যায় অনেক পুরুষ মাকড়সা! 

প্রকৃতির নিয়মে ব্যতিক্রম থাকবে না তা কি হয়? এক্ষেত্রেও আছে, অনেক মাকড়সার প্রজাতি রয়েছে যেখানে পুরুষ মাকড়সা স্ত্রী মাকড়সাকে ভক্ষণ করে। শুধু কি তাই? সদ্যোজাত সন্তানরাও খেয়ে ফেলে জন্মদাত্রী মা মাকড়সা কে! সেসব নিয়ে নাহয় অন্য আরেকদিন গপ্পো হবে।

 

 

স্ত্রী black widow মাকড়সা (ডানদিকে) পুরুষ মাকড়সাকে ভক্ষনরত অবস্থায়।

 

————————————

~ কলমে এলেবেলে অর্চিষ্মান ~

এলেবেলের দলবল

 

► লেখা ভাল লাগলে অবশ্যই লাইক করুন, কমেন্ট করুন, আর সকলের সাথে শেয়ার করে সকলকে পড়ার সুযোগ করে দিন। 

► এলেবেলেকে ফলো করুন। 

 

 

 

 

 

Leave a Reply

free hit counter
error

লেখা ভালো লেগে থাকলে দয়া করে শেয়ার করবেন।